biswasjitghosh-interview-myo
biswasjitghosh-interview-myo

Lockdown এবং শুটিং(shooting) এর অভিজ্ঞতা:

Lock Down এবং একঘেয়েমিতে সবাই বিরক্ত, নিজের শুটিং(shooting) অভিজ্ঞতা, পরবর্তী প্ল্যান, নিজের মতামত তুলে ধরলের পরিচালক বিশ্বজিৎ ঘোষ কথোপকথনে টিম এম ওয়াই ও।

Lock down কেমন কাটছে? বাড়ি বন্দি? নাকি টুকটাক ক্লাস চলছে? নতুন কোনো shooting এর মধ্যে শুরু হবে?

-হ্যাঁ, lock down এ ঘরবন্দি হয়ে গেছিলাম। whatsapp এ অনলাইন class শুরু করেছিলাম। নতুন অভিনেতা অভিনেত্রী তৈরি করছিলাম।

Next planning কি? মানে কি নিয়ে এগোতে চাইছেন? নতুন কোনো জনরা নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করছেন?

Next plan ওই তো “আমি রবীন্দ্রনাথ” দ্বিতীয় পর্ব। প্রথম পর্বে যেটা দেখিয়েছিলাম বাল্যকাল থেকে কাদম্বরী দেবীর মৃত্যু পর্যন্ত। সত্যি বলতে কাদ্ম্বরী দেবীর মৃত্যুতে রবীন্দ্রনাথের ওপর খুবই প্রভাব পড়েছিলো। দ্বিতীয় পার্টে দেখাব কাদ্ম্বরী দেবীর মৃত্যু থেকে মৃনালীনি দেবীর মৃত্যু পর্যন্ত। রবীন্দ্রনাথ টেগোর এবং তার স্ত্রী মৃনালীনি দেবীর কেমিস্ট্রি টা।

বেশ কিছু বাংলা সিনেমা remake করেছেন পুরনো বাংলাকে আপনার সিনেমায় তুলে আনতে চেয়েছেন, একদম নতুন কিছু নিয়ে কাজ করার কথা ভাবছেন না? অবাংলা কোনো উপন্যাস থেকে বা নিজের original script এ?

-remake কি করে বলব, আপনারা বোধ হয় চারুলতার কথা বলছেন। হ্যাঁ করেছি। সেটা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রতি আমাদের একটা শ্রদ্ধার্ঘ। পুরোনো বাংলা ছবি ছিল স্বর্ণযুগ। সেই সময়টা ঘুরে প্রতিষ্ঠা করার আপ্রাণ চেষ্টা করছি। না আপাতত আমি রবীন্দ্রনাথ নিয়ে কাজ করছি, বাইরে থেকে স্ক্রিপ্ট নেওয়ার কথা ভাবছি না, আপাতত আমি রবীন্দ্রনাথ।

পথের পাঁচালি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে experience কেমন হয়েছিলো?

-পথের পাঁচালি নিয়ে কাজ করার experience তো দারুণ, আমরা সেই জায়গা গুলোয় গেছিলাম যেখানে সত্যজিৎ রায় গেছিলেন। বর্ধমানের কালশিটিতে গেছিলাম, ট্রেন আর কাশবন তো সেই জায়গায় দেখা যাবে, তাই না? শক্তিগড়ের আগের stoppage, ওখানে নেমে শুটিং(shooting) করেছি আমরা। অনেকটা অংশ দেখা হয়েছে মেদিনীপুরের বেলদায়। হরিহরের বাড়ির অংশটি ওখানে শুটিং(shooting) করেছি, গ্রামের জিনিস যতোটা পেরেছি তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। একটা গরুর গাড়ি দেখেছি যেটা সত্যি 1950 সালে ব্যবহার হতো। সব থেকে বড়ো ব্যাপার এই যে ধামা কুলো তুলসী মঞ্চ এই সব গ্রাম্য জিনিস তুলে ধরেছি। অপু দুর্গা পুকুর পাড় দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে, জলে তাদের প্রতিবিম্ব এই সব তুলে ধরেছি। বৃষ্টি তুলে ধরেছি, তেপান্তরের মাঠ, যা একেবারে দিগন্তে মিশে যায়, এই সব আর কি।

Lockdown এবং শুটিং এর অভিজ্ঞতা

সত্যজিৎ রায় ছাড়া আর কা’কে নিজের idol মানেন?

-সত্যজিৎ রায়ের পর ঋত্বিক ঘটক, আমি ওনাকে ভীষণ ভীষণ শ্রদ্ধা করি।

বর্তমান পছন্দের actor/actress এর নাম জানতে চাইলে কার নাম মাথায় আসে প্রথমেই?

-আপনি যদি ইন্ডিয়ার perspective থেকে বলেন তবে আদিত্য চোপড়া, রাজকুমার হিরানি, আর এক জন আছেন সঞ্জয় লীলা বনশালী, আর এক জন আছেন আছেন মধুর  ভান্ডারকর, আমার ওনার best three তো মনে গেঁথে আছে। আর রাজকুমার হিরানির তো তুলনা নেই ওনার 3 ediots, আর ওই যে লাগে রহো মুন্না ভাই তো দারুণ দারুণ। আর favourite actor যদি Bollywood এর জিজ্ঞেস করেন তো শাহরুখ খান, সড়ক, দুর্ধর্ষ expression, the King of expression। আর অভিনেত্রী কাজল, সেটা অবশ্যই SRK এর জন্যই, শাহরুখ খানের সাথে ওনার যে রসায়ন ফুটে ওঠে তা আর ওন্য  কারোর সাথে ফুটে ওঠে না।

Next biopic নিয়ে কাজ করতে চাইলে কাকে নিয়ে করবেন?

Next biopic নিয়ে কাজ করতে চাই মমতা ব্যানার্জিকে নিয়ে “আমি মমতা”। ওনার struggle টা journey টা ভীষণ ভীষণ ইন্টারেস্টিং।

একদম, পলিটিক্যাল ভিউ যাই হোক ওনার journey টা খুব inspiring

-হ্যাঁ, ওনার ছাত্ররাজনীতি করা, তার পর ওনার struggle নিয়ে, উনি একা যেভাবে এগিয়েছেন, খুব খুব inspiring আমার কাছে।

আপনি absurd art নিয়ে প্রচুর কথা বলেন, এই নিয়ে আপনার নিজের কি মতামত? আপনার মতে absurdity ঠিক কি?

-Absurd, ইংরেজিতে মানে করলে অযৌক্তিক, তার পরে আর্ট বসালে অযৌক্তিক একটা আর্ট। মানে মানুষ আমাকে কি বলবে পাগল। কিন্তু আমি একটু ব্যাপারটা বুঝিয়ে বলি, দেখুন বেশ কিছু এলোমেলো ভাবনা, যা দেখলে লোকে বলবে পাগল, সেই এলোমেলো ভাবনাগুলো যদি এক জায়গায় জড়ো হয়ে inner meaning, অন্তর্নিহিত অর্থ তৈরি করে, গভির অর্থ, সেটাই আমার কাছে absurd art, যেমন ধরুন আমি বলেছি চিনের প্রাচীর বাঙালি, তাজমহল বাঙালি, মানুষ ভাবতে পারে এগুলো কি করে বাঙালি হতে পারে? সব থেকে বড়ো কথা তাজমহল জড়পদার্থ, বাঙালি হতে গেলে মানুষ হতে হবে, তার তো প্রাণ থাকতে হবে।

এটাই হচ্ছে personification, সাহিত্যে কবিতায় personification এর একটা জায়গা আছে। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বারবার তাঁর কবিতায় personification কে টেনে এনেছেন। কবিরা চাঁদকে তার প্রেমিকা বা প্রেমিক ভেবেছে, বা মেঘকে নারীর সাথে তুলনা করেছে, প্রকৃতিকে মা ভাবা, আমরা যে প্রকৃতিকে মা ভাবি, এটাও তো একটা সব থেকে বড় personification। আমরা ভারতমাতা বলি, এটাও তো একটা এলোমেলো ভাবনা, কিন্তু এর মধ্যে একটা অন্তর্নিহিত অর্থ আছে। আমরা এই দেশের মাটিতে জন্মেছি, যেহেতু দেশের মাটিতে আমাদের জন্ম, মাটিটাকেই আমরা গর্ভ ভেবে নিচ্ছি। দেশের যে খাবার খাই সেটা মায়ের স্তন ভেবে নিচ্ছি। এটাও তো একটা অ্যাবসার্ড আর্ট।তেমনই তাজমহলও বাঙালি, এই যে পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্য এটা বাঙালির কথায় কথায় উঠে আসে, আমরা খুব রেগে গিয়ে কোনো অদ্ভূত দেখতে ব্যক্তিকে অষ্টম আশ্চর্য বলিনা?

তাহলে ভেবে দেখুন অষ্টম আশ্চর্য যদি বাঙালি হয় মানুষ হয় তবে সপ্তম আশ্চর্য কেনো মানুষ হবে না? আর বাঙালি জাতি বারবার তার কথায় কথায় আলোচনা করেছে। বাংলা সংস্কৃতির ওপর অনেক কিছুরই impact আছে সে ভাষা হোক, কোনো বস্তু হোক। মাদার টেরেসা অবশ্যই বাঙালি, তিনি বাঙালির জন্য যা করেছেন তা অন্য অনেকই করেননি। ভগিনী নিবেদিতা অবশ্যই বাঙালি।

আপনার সব মতের সাথে একমত হতে পারলাম না, absurdity নিয়ে আমার আলাদা একটা দৃষ্টিভঙ্গি আছে যদিও। কিন্তু আপনার মতামত অবশ্যই সম্মান করি। খুব ভালো লাগলো কথা বলে।

-হ্যাঁ, নিশ্চয়ই, আমারও কথা বলে ভীষণ ভালো আছেন। –অনেক কিছু জানলাম, ধন্যবাদ।

Follow us on FacebookTwitter

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here