rabindranath-ekhane-kkhno-khete-aseni-web-series-review-hoichoi-myo
rabindranath-ekhane-kkhno-khete-aseni-web-series-review-hoichoi-myo

রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি(Rabindranath Ekhane kokhono Khete Aseni)

গত কাল Hoichoi তে এসেছে Svf ও সৃজিত মুখার্জীর একসাথে প্রথম সিরিজ REKKA। মহম্মদ নাজিমউদ্দিনের লেখা সর্বাধিক বিক্রিত থ্রিলার উপন্যাস নিয়ে তৈরি এই সিরিজে গল্পের পরিবর্তন খুব একটা হয় নি। গল্প এবং প্লট মোটামুটি একই, শুধু নূরে ছফার নাম বদল করে করা হয় নিরুপম চন্দ। করোনার কারণে বেশির ভাগ শুটিং লোকেশন এপার বাংলাতেই রাখা হয়েছে, যার জন্য চরিত্রে কিছু পরিবর্তন আবশ্যক।

গল্পের ডায়ালগ বেশ গুরুত্বপূর্ণ এবং সৃজিত মুখার্জী সেখানে বেশ ভালো কাজ করেছেন। অনির্বাণ ভট্টাচার্যের  আতর আলী চরিত্রে বাংলাদেশী অ্যাকসেন্ট মোটের উপর ভালো, কিছু ক্ষেত্রে ভাষার অ্যাকসেন্টে একটা মেকিভাব এলেও সেটা তাৎক্ষণিক। অনির্বাণের অভিনয় দক্ষতায় সেটুকু ঢাকা পড়ে যায়। নূরে ছফা থেকে নিরুপম চন্দ এবং তাঁর পশ্চিমবঙ্গের বাইরে থাকা আসল ডায়লগ থেকে অনেকটা পরিবর্তন করেছে। যারা উপন্যাসটি পড়ে নিয়েছে তাদের কাছে এই পরিবর্তন চোখে লাগতে পারে, তবে তা বাদে রাহুল বোস এই চরিত্রটিকে বেশ ভালো ভাবে ফুটিয়ে তুলেছে। অনির্বাণ চক্রবর্তী এবং অঞ্জন দত্তের ডায়লগ কম এবং তাদের চরিত্র অনুযায়ী যথাযথ। এবার আসি সবথেকে কন্ট্রোভার্সিয়াল চরিত্র  মুশ্কান যাবেরির ক্ষেত্রে, ডায়লগে এবং অভিনয়ে বাঁধন পাশ করে গেছে।

রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি(Rabindranath Ekhane kokhono Khete Aseni)

rabindranath-ekhane-khokono-khete-aseni

অভিনয়ে আজমেরি হক বাঁধন খুব ভালো লেগেছে, এপার বাংলায় ওনার কাজ তেমন দেখা নেই বলা যায়, তাই উনি মুশকানের চরিত্রে একটা মিস্ট্রি তৈরি করতে সফল, চেনা অভিনেত্রী হলে সেটা অনেকটা হতো না হয়তো। রাহুল বোস তার চরিত্রে সুবিচার করেছে, প্রথমে একটু অগোছালো লাগলেও পরে চরিত্র দৃঢ় হয়েছে। অনির্বাণ ভট্টাচার্যের চেষ্টা সত্বেও ভাষায় এবং কিছু ক্ষেত্রে অভিনয়ে অসাবলীলতা দেখা যায়। অনির্বাণ চক্রবর্তীর স্ক্রিনটাইম কম হলেও অভিনয় খুব ভালো, অঞ্জন দত্তের কথা আলাদা করে আর কি বলব। তবে ফালু চরিত্রটি প্রশংসার দাবি রাখে।

রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি(Rabindranath Ekhane kokhono Khete Aseni)

সিরিজের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা হল রবীন্দ্রনাথের। “ভাতের হোটেল, নাম রেখেছে রবীন্দ্রনাথ”। কেনো এই হোটেলের নাম এইরকম? সেই ইতিহাসও জেনে নেওয়া যাবে। তবে তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ হল রবীন্দ্রসঙ্গীতের ব্যবহার। প্রতিটি রবীন্দ্রসঙ্গীত খুব যত্ন করে নির্বাচন করা হয়েছে এবং তাৎপর্যপূর্ণভাবে ব্যবহার করা হয়েছে। পুরো সিরিজটা শুধু গানের জন্যই দেখে নেওয়া যায়। আবহসঙ্গীত হিসেবে রবীন্দ্রসঙ্গীত আলাদা মাত্রা দিয়েছে সিনগুলিতে।  তবে একটি সিনে স্বয়ং রবি ঠাকুরকেও অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে।

রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি(Rabindranath Ekhane kokhono Khete Aseni)

রঙের ব্যবহার, আর্ট ডিরেকশন খুব ভালো এবং সুন্দরপুরের লোকেশনও। শব্দ ও টেকনিক্যাল কিছু সমস্যার জন্য অনেক সময় খুব কষ্ট করে শুনতে হয়। আতর আলীর অনেক ডায়লগ অপরিষ্কার, এবার এটা তার অতিরিক্ত পান খাওয়ার জন্যেই কিনা সেটা ডিরেক্টর মশাই ভালো বলতে পারবেন। শহীদ মিনারে শুটিংটি না হলেও পারতো। এগ্সিক্যিউশন আরো ভালো হতে পারতো। চরিত্রগুলো develop হওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়নি। ভালো খারাপ মিলিয়ে সিরিজটি দেখে নেওয়া যায়, পরের সিজনে আরো ভালো কিছুর অপেক্ষায় থাকলাম।

রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি(Rabindranath Ekhane kokhono Khete Aseni)

সব শেষে On M.Y. Opinion রেক্কা is 60% OP, 76% OK।

Follow us on FacebookTwitter

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here